ঢাকা সোমবার, ২১শে অক্টোবর ২০১৯, ৭ই কার্তিক ১৪২৬


পিলখানা হত্যাকাণ্ডের ১০ বছর


২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ১১:৪৮

আপডেট:
১৫ জুলাই ২০১৯ ১৭:১১

বিডিআর বিদ্রোহে ভারী অস্ত্র হাতে জওয়ানেরা। ফাইল ছবি

বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় করা হত্যা মামলায় হাইকোর্টের রায় হলেও বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে করা মামলা এখনো নিম্ন আদালতের গণ্ডিই পেরোতে পারেনি। এই মামলা সাক্ষ্য গ্রহণ পর্যায়ে রয়েছে। ২০০৯ সালের ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি ঘটেছিল ওই নারকীয় হত্যাকাণ্ড।

পিলখানা ট্র্যাজেডিতে ৫৭ সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জন প্রাণ হারান। ওই ঘটনায় দুটি ফৌজদারি মামলা হয়। একটি হত্যা, অন্যটি বিস্ফোরক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে। হত্যা মামলায় আসামি ছিলেন ৮৫০ জন। অন্যটিতে আসামির সংখ্যা ৮৩৪। দুই মামলায় মোট সাক্ষী ১ হাজার ৩৪৪ জন। হত্যা মামলায় ৬৫৪ জন সাক্ষ্য দেন। আর বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের মামলার বিচারকাজ চলছে পুরান ঢাকার বকশীবাজারে আলিয়া মাদ্রাসাসংলগ্ন মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী এজলাসে।

হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায়ের অপেক্ষা 
পিলখানা হত্যা মামলা হিসেবে পরিচিত এই মামলায় বিচারিক আদালতে ৮৫০ আসামির মধ্যে ৮৪৬ জন বিচারের মুখোমুখি হন। বিচারিক আদালতের রায়ে ১৫২ জনের মৃত্যুদণ্ড, ১৬০ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড, ২৫৬ জনের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড হয়, আর খালাস পান ২৭৮ জন।

২০১৩ সালের ৪ নভেম্বর হত্যা মামলায় বিচারিক আদালত রায় দেন। রায়ের পর আসামিদের মৃত্যুদণ্ড অনুমোদনের জন্য হাইকোর্টে আসে, যা ডেথ রেফারেন্স মামলা হিসেবে পরিচিত। পাশাপাশি দণ্ডিত আসামি ও রাষ্ট্রপক্ষ খালাস পাওয়া ৬৯ জনের ক্ষেত্রে পৃথক আপিল করে। এ হিসাবে উচ্চ আদালতে বিচারের মুখোমুখি হন ৬৩৭ জন, যাঁদের মধ্যে ২৮ জন আপিল করেননি ও ৬ জন বিচারিক আদালতের রায়ের পর মারা যান। এ হিসাবে সংখ্যা দাঁড়ায় ৬০৩। এসবের ওপর ২০১৫ সালের ১৮ জানুয়ারি হাইকোর্টের তিন সদস্যের বিশেষ বেঞ্চে শুনানি গ্রহণ শুরু হয়। ৩৭০ কার্যদিবস শুনানি শেষে হাইকোর্ট ২০১৭ সালের ২৬ ও ২৭ নভেম্বর রায় ঘোষণা করেন।

হাইকোর্টের রায়ে বিডিআরের সাবেক ডিএডি তৌহিদুল আলম ১৩৯ আসামির মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখা হয়। ১৮৫ আসামিকে দেওয়া হয় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড, যাঁদের মধ্যে ৩১ জন বিচারিক আদালতের রায়ে খালাস পেয়েছিলেন। হাইকোর্টের রায়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা তোরাব আলীসহ ৪৫ জন সাজা থেকে খালাস পান। এ ছাড়া বিভিন্ন মেয়াদে সাজা বহাল ও দণ্ডাদেশ দেওয়া হয় অপর ২০০ আসামিকে।

এই মামলায় হাইকোর্টে রাষ্ট্রপক্ষে থাকা ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল কে এম জাহিদ সারওয়ার গত শনিবার প্রথম আলোকে বলেন, ‘যতটুকু জেনেছি, তিন সদস্যের বেঞ্চের নেতৃত্বদানকারী বিচারপতি তাঁর নিজের লেখা ১১ হাজার ৪১২ পৃষ্ঠার রায় নিয়ম অনুসারে ইতিমধ্যে বেঞ্চের অপর দুই বিচারপতির কাছে পাঠিয়েছেন। তবে হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় এখনো প্রকাশিত হয়নি। হাইকোর্টের রায়ের পর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড থেকে খালাস পাওয়া তোরাব আলী মারা যান। এ হিসাবে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক ১৪ আসামি ছাড়া অপর ৫৮৮ আসামি কারাগারে আছেন।’

হাইকোর্টে মৃত্যুদণ্ড বহাল থাকা সাবেক ডিএডি সৈয়দ তৌহিদুল আলমসহ দণ্ডপ্রাপ্ত সাড়ে তিন শর বেশি আসামির আইনজীবী ছিলেন আমিনুল ইসলাম। শনিবার প্রথম আলোকে তিনি বলেন, হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায়ের প্রত্যয়িত অনুলিপি হাতে পেলে সংবিধানের ১০৩ অনুচ্ছেদ অনুসারে দণ্ডিত ব্যক্তিরা আপিল করবেন। তবে রায়ের পূর্ণাঙ্গ কপি না পাওয়ার কারণে তাঁরা আপিল করতে পারছেন না।

বিস্ফোরক মামলায় ধীর গতি
হত্যা মামলার বিচারপ্রক্রিয়ায় দুটি ধাপ শেষ হলেও বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের মামলাটি এখনো বিচারিক আদালতে সাক্ষ্য গ্রহণ পর্যায়ে রয়েছে। এ মামলায় ১ হাজার ৩৪৪ জনের মধ্যে এখন পর্যন্ত মাত্র ৭৮ জনের সাক্ষ্য হয়েছে।

এই মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি মোশাররফ হোসেন শনিবার প্রথম আলোকে বলেন, ঘটনাস্থল, সাক্ষী ও আসামি একই হওয়ায় দুটি মামলায় একসঙ্গে অভিযোগ গঠন করা হয়েছিল। তবে আসামিপক্ষের আবেদনে মামলা দুটির বিচারকাজ পৃথকভাবে চলে। হত্যা মামলায় ২০১৩ সালের ৫ নভেম্বর বিচারিক আদালতে রায় হয়। এরপর সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের এই মামলায় নিরাপত্তাজনিত কারণে আদালতে হাজির করা নিয়ে বিলম্ব হয়। এখন প্রতি মাসে তিনটি তারিখে মামলাটির কার্যক্রম চলছে। চলতি বছরই মামলাটি নিষ্পত্তি হতে পারে বলে আশা করেন তিনি।

আসামিপক্ষের আইনজীবী ফারুক আহাম্মদ প্রথম আলোকে বলেন, এ মামলায় ১ হাজার ৩৪৪ জন সাক্ষীর মধ্যে মাত্র ৭৮ জন সাক্ষ্য দিয়েছেন। এতে গতিহীন হয়ে পড়েছে মামলাটি। এভাবে চলতে থাকলে মামলাটির চূড়ান্ত নিষ্পত্তি কবে হবে, তা অনিশ্চিত।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সূত্র বলেছে, বিডিআরে বিদ্রোহের ঘটনায় সবচেয়ে বেশি লোকের সাজা হয় অধিনায়কদের সামারি ট্রায়ালে। এতে ১১ হাজার ২৬৫ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়। তাঁদের মধ্যে ১০ হাজার ৯৭৩ জনের বিভিন্ন ধরনের সাজা হয়। সাজাপ্রাপ্তদের মধ্যে ৮ হাজার ৭৫৯ জনকে চাকরিচ্যুত করা হয়। অন্যরা প্রশাসনিক দণ্ড শেষে আবার চাকরিতে যোগ দেন।

দ্বিতীয় পর্যায়ে বিশেষ আদালত গঠন করে ৬ হাজার ৪৬ জন জওয়ানকে বিচারের মুখোমুখি করা হয়। এসব মামলায় ৫ হাজার ৯২৬ জনের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড হয়। তাঁদের প্রত্যেককে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। আর বেকসুর খালাস পাওয়া ১১৫ জন চাকরি ফিরে পেয়েছেন। বিচার চলার সময় ৫ জনের মৃত্যু হয়।



Top